bengali

অনলাইন কোর্সে ২০ ক্রেডিট পয়েন্ট পেলেই বি টেক ‘অনার্স’ ডিগ্রি মিলবে

Webdesk | Tuesday, May 15, 2018 4:17 PM IST

অনলাইন কোর্সে ২০ ক্রেডিট পয়েন্ট পেলেই বি টেক ‘অনার্স’ ডিগ্রি মিলবে

এবার থেকে বি টেক অনার্স(সাম্মানিক) পাওয়ার সুযোগ মিলবে। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ডিগ্রির আরও গুরুত্ব বাড়াতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। এআইসিটিই’র এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে উদ্যোগী প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। এতদিন চার বছরের স্নাতক পাশ করলে একজন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়া পেতেন বি টেক ডিগ্রি। কিন্তু এবার থেকে বি টেক ‘অনার্স’ ডিগ্রি পাওয়ার সুযোগ থাকবে। অর্থাৎ, বাড়তি ডিগ্রি জুড়বে। তার জন্য পড়ুয়াকে অনলাইন কোর্স করতে হবে। আর তাতে চার বছরে ২০ ক্রেডিট পয়েন্ট পেতে হবে। প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এই সম্পর্কিত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। 

এমনিতে চার বছরের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের পাঠ্যক্রমে ১৬০ ক্রেডিট পয়েন্ট পেতে হবে ছাত্রছাত্রীদের। কিন্তু এবার তার সঙ্গে অনলাইন কোর্সের উপরও বাড়তি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। ম্যাসিভ ওপেন অনলাইন কোর্স (এমওওসি)-এর মাধ্যমে পড়ুয়ারা এই কোর্স করতে পারবেন। তবে এটা পুরোটাই ঐচ্ছিক। কিন্তু যাঁরা অনলাইনে কোর্স করবেন, তাঁদের জন্যই এই বাড়তি ডিগ্রি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে কারিগরি শিক্ষার এই নিয়ামক সংস্থা। কী কী অনলাইন কোর্স রয়েছে, তারও তালিকা তৈরি করে দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়। সব মিলিয়ে ৫৩টি কোর্সের তালিকা করা হয়েছে। 

অনলাইন কোর্সে কোন বছরে কত ক্রেডিট পয়েন্ট পেতে হবে, তারও বলে দেওয়া হয়েছে। যেমন, প্রথম বর্ষে আট এবং বাকি তিন বর্ষে চার ক্রেডিট পয়েন্ট করে থাকবে। তবে কেউ যদি একটি নির্দিষ্ট বছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত ক্রেডিট পয়েন্ট পেতে ব্যর্থ হন, তাহলে তা পরের বছরে করতে হবে। 

কিন্তু কেন এই বাড়তি ডিগ্রি দেওয়ার সিদ্ধান্ত? শিক্ষা কর্তারা বলেন, এখন অনলাইন কোর্সের চাহিদা ভালো। শুধু চার বছর বইয়ে কী লেখা রয়েছে, পড়লে হবে না। তার বাইরে কিছু অভিনব কোর্সের জ্ঞান থাকাও প্রয়োজন।  চাকরির বাজারে এই ধরনের প্রার্থীদের গুরুত্ব আছে। 

এদিকে, কেউ যদি তাঁর স্টার্ট আপ বা অন্য কোনও উদ্ভাবনী কাজের জন্য নিয়মিত ক্লাস করতে বা পরীক্ষা দিতে না পারেন, তাহলে কোনও সমস্যা হবে না বলেই জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এই পড়ুয়াদের অনলাইনে কোর্স করে তা পুষিয়ে দেওয়ার জন্য উৎসাহ দেওয়া হবে। অবশ্যই কে কী কাজ করছেন, তা আগে যাচাই করে নেবে সংশ্লিষ্ট কলেজ। শীঘ্রই এ নিয়ে কলেজগুলির কাছে চিঠি পাঠাতে চলেছে বিশ্ববিদ্যালয়।